ঢাকা ০৫:৪৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অবরোধে রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চল জোনে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি:
  • আপডেট সময় : ০৮:০৮:০২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ অক্টোবর ২০২৩ ৪৬ বার পঠিত

বিএনপি-জামায়াতের ডাকা তিনদিনের অবরোধের প্রথম দিনে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশী ও লালমনিরহাট বিভাগে স্বাভাবিক নিয়মেই ট্রেন চলাচল করছে। সকালে জয়দেবপুরের পূর্ববর্তী মৌচাক ষ্টেশনের কাছে শ্রমিকদের বিক্ষোভের মূখে পড়ে শুধু ঈশ্বরদী থেকে ঢাকাগামী একটি লোকাল ট্রেন। এছাড়া আর কোথায়ও কোন অবরোধের প্রভাব দেখা যায়নি। স্বাভাবিক রয়েছে আন্ত:নগর, মেইল , লোকাল ও মালবাহী ট্রেন চলাচল। মঙ্গলবার (৩১ অক্টোবর) ভোর থেকেই পশ্চিম জোনের বৃহত্তম ঈশ্বরদী জংশন ষ্টেশনসহ দুই বিভাগের সকল ষ্টেশনের ওপর দিয়ে আসা-যাওয়া করছে বিভিন্ন রুটের ট্রেন। যাত্রীর উপস্থিতিও ছিল সন্তোষজনক।

রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চল জোনের মহাব্যবস্থাপক অসীম কুমার তালুকদার জানান, পাকশী ও লালমনিরহাট বিভাগে অবরোধকে উপেক্ষা করে স্বাভাবিক নিয়মেই ট্রেন চলাচল করছে। সকাল দশটার দিকে গাজীপুর এলাকায় শ্রমিক বিক্ষোভের কারণে জয়দেবপুর ষ্টেশনের পূর্ববর্তী ‘মৌচাক’ ষ্টেশনে কিছুটা বিশৃংখলা হলে ঈশ্বরদী হতে ঢাকাগামী লোকাল ট্রেন চলাচলে কিছুটা সমস্যার সৃষ্টি হয়।

পাকশির বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজার শাহ সুফী নূর মোহাম্মদ বলেন, পশ্চিম রেলের বৃহত্তম পাকশী বিভাগ। এই বিভাগে বিপুল সংখ্যক ট্রেন চলাচল করে। বিকেল পর্যন্ত মৌচাক স্টেশন ছাড়া আর কোথায়ও কোন অপ্রিতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। স্বাভাবিক নিয়মে যাত্রীরা স্বাচ্ছন্দে যাতায়াত করছে।

ঈশ্বরদী জংশনের স্টেশন সুপারিন্টেন্ডেন্ট মহিবুল ইসলাম বলেন, কোনরূপ বাঁধা-বিঘ্ন ছাড়াই ঈশ্বরদী জংশন স্টেশনের ওপর দিয়ে খুলনা, ঢাকা, রাজশাহী, গোয়ালন্দঘাট, ঢালারচর,সৈয়দপুর, রহনপুর, চাঁপাইনবাবগঞ্জ রুটে সকল ট্রেন স্বাভাবিক নিয়মে চলাচল করছে। এছাড়াও ঈশ্বরদী বাইপাস স্টেশন দিয়ে দিনাজপুর, ঢাকা, লালমনিরহাট, চিলাহাটি ও রাজশাহী রুটের ট্রেনগুলোও যথানিয়মে যাতায়াত করছে। রেলপথ ও স্টেশনে বিপুল সংখ্যক রেল পুলিশ ও রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন রয়েছে। এছাড়াও উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুবির কুমার দাশ স্বশরীরে এসে খোঁজখবর নিয়েছেন বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত: ২৯ অক্টোবর বিএনপি’র ডাকে সারাদেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল শেষে সারাদেশে মহাসড়ক, রেল ও নৌপথে তিন দিনের (৩১ অক্টোবর ভোর থেকে ২ নভেম্বর) অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। বিএনপির পর জামায়াতে ইসলামীও তিন দিনের অবরোধ ঘোষণা করে।

ট্যাগস :

অবরোধে রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চল জোনে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক

আপডেট সময় : ০৮:০৮:০২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ অক্টোবর ২০২৩

বিএনপি-জামায়াতের ডাকা তিনদিনের অবরোধের প্রথম দিনে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশী ও লালমনিরহাট বিভাগে স্বাভাবিক নিয়মেই ট্রেন চলাচল করছে। সকালে জয়দেবপুরের পূর্ববর্তী মৌচাক ষ্টেশনের কাছে শ্রমিকদের বিক্ষোভের মূখে পড়ে শুধু ঈশ্বরদী থেকে ঢাকাগামী একটি লোকাল ট্রেন। এছাড়া আর কোথায়ও কোন অবরোধের প্রভাব দেখা যায়নি। স্বাভাবিক রয়েছে আন্ত:নগর, মেইল , লোকাল ও মালবাহী ট্রেন চলাচল। মঙ্গলবার (৩১ অক্টোবর) ভোর থেকেই পশ্চিম জোনের বৃহত্তম ঈশ্বরদী জংশন ষ্টেশনসহ দুই বিভাগের সকল ষ্টেশনের ওপর দিয়ে আসা-যাওয়া করছে বিভিন্ন রুটের ট্রেন। যাত্রীর উপস্থিতিও ছিল সন্তোষজনক।

রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চল জোনের মহাব্যবস্থাপক অসীম কুমার তালুকদার জানান, পাকশী ও লালমনিরহাট বিভাগে অবরোধকে উপেক্ষা করে স্বাভাবিক নিয়মেই ট্রেন চলাচল করছে। সকাল দশটার দিকে গাজীপুর এলাকায় শ্রমিক বিক্ষোভের কারণে জয়দেবপুর ষ্টেশনের পূর্ববর্তী ‘মৌচাক’ ষ্টেশনে কিছুটা বিশৃংখলা হলে ঈশ্বরদী হতে ঢাকাগামী লোকাল ট্রেন চলাচলে কিছুটা সমস্যার সৃষ্টি হয়।

পাকশির বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজার শাহ সুফী নূর মোহাম্মদ বলেন, পশ্চিম রেলের বৃহত্তম পাকশী বিভাগ। এই বিভাগে বিপুল সংখ্যক ট্রেন চলাচল করে। বিকেল পর্যন্ত মৌচাক স্টেশন ছাড়া আর কোথায়ও কোন অপ্রিতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। স্বাভাবিক নিয়মে যাত্রীরা স্বাচ্ছন্দে যাতায়াত করছে।

ঈশ্বরদী জংশনের স্টেশন সুপারিন্টেন্ডেন্ট মহিবুল ইসলাম বলেন, কোনরূপ বাঁধা-বিঘ্ন ছাড়াই ঈশ্বরদী জংশন স্টেশনের ওপর দিয়ে খুলনা, ঢাকা, রাজশাহী, গোয়ালন্দঘাট, ঢালারচর,সৈয়দপুর, রহনপুর, চাঁপাইনবাবগঞ্জ রুটে সকল ট্রেন স্বাভাবিক নিয়মে চলাচল করছে। এছাড়াও ঈশ্বরদী বাইপাস স্টেশন দিয়ে দিনাজপুর, ঢাকা, লালমনিরহাট, চিলাহাটি ও রাজশাহী রুটের ট্রেনগুলোও যথানিয়মে যাতায়াত করছে। রেলপথ ও স্টেশনে বিপুল সংখ্যক রেল পুলিশ ও রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন রয়েছে। এছাড়াও উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুবির কুমার দাশ স্বশরীরে এসে খোঁজখবর নিয়েছেন বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত: ২৯ অক্টোবর বিএনপি’র ডাকে সারাদেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল শেষে সারাদেশে মহাসড়ক, রেল ও নৌপথে তিন দিনের (৩১ অক্টোবর ভোর থেকে ২ নভেম্বর) অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। বিএনপির পর জামায়াতে ইসলামীও তিন দিনের অবরোধ ঘোষণা করে।