ঢাকা ০৫:৩৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঈশ্বরদীতে যুবকের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি:
  • আপডেট সময় : ০৫:৪১:২৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৯ এপ্রিল ২০২৪ ২৬ বার পঠিত

নিখোঁজের সাত দিন পর ঈশ্বরদীর পাকশী থেকে ব্যাটারি চালিত ইজিবাইকের চালক সাগর মন্ডলের (২৬) নামের এক যুবকের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রবিবার (২৮ এপ্রিল) সন্ধ্যার দিকে উপজেলার পাকশী রেলওয়ে স্টেশন সংলগ্ন কলাবাগান থেকে মরদেহটি উদ্ধার হয়। নিহত সাগর কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলার হোগলবাড়িয়া ইউনিয়নের সাদীপুর গ্রামের সিরাজ মন্ডলের ছেলে।
নিহতের ভাই মাহফুজ ইসলাম জানান, গত ২১ এপ্রিল সকালে ভাই সাগর ইজিবাইক নিয়ে বের হয়। সন্ধ্যায় বাবার সাথে কথা হলে সাগর জানায় সে ভেড়ামারার সাতবাড়িয়া থেকে বাড়ির দিকে আসছে। কিন্তু সে বাড়িতে আসেনি এবং তার মোবাইলটি বন্ধ পাওয়া যায়। অনেক খোঁজাখুঁজির পর তাকে না পেয়ে ২২ এপ্রিল কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানায় সাধারণ ডায়েরী করা হয়। পাকশীর পরিচিত একজন ফোন করে জানায়, একজনের লাশ পাওয়া গেছে এসে দেখে যেতে। এসে দেখি আমার ভাইয়ের লাশ। নিহতের শশুড় তৌহিদুল ইসলাম বলেন, আমার জামাইয়ের লাশের পাশে তার মোবাইল ও স্যান্ডেল পাওয়া গেছে। কিন্তু ইজিবাইকটি পাওয়া যায়নি।
ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, সন্ধ্যার দিকে পাকশী রেলওয়ে স্টেশন সংলগ্ন কলাবাগানের কাছে ঘাস কাটতে গিয়ে একটি অর্ধগলিত মরদেহ দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা থানায় খবর দেয়। তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে যেয়ে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানার নিখোঁজ জিডি’র সূত্র ধরে ওই পরিবারকে খবর দেই। নিহতের পরিবার এসে মরদেহ শনাক্ত করলে মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা পাঠানো হয়। ইজিবাইক ছিনতাই করতেই হত্যা করা হয়েছে বলে ওসি’র ধারণা।

ট্যাগস :

ঈশ্বরদীতে যুবকের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার

আপডেট সময় : ০৫:৪১:২৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৯ এপ্রিল ২০২৪

নিখোঁজের সাত দিন পর ঈশ্বরদীর পাকশী থেকে ব্যাটারি চালিত ইজিবাইকের চালক সাগর মন্ডলের (২৬) নামের এক যুবকের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রবিবার (২৮ এপ্রিল) সন্ধ্যার দিকে উপজেলার পাকশী রেলওয়ে স্টেশন সংলগ্ন কলাবাগান থেকে মরদেহটি উদ্ধার হয়। নিহত সাগর কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলার হোগলবাড়িয়া ইউনিয়নের সাদীপুর গ্রামের সিরাজ মন্ডলের ছেলে।
নিহতের ভাই মাহফুজ ইসলাম জানান, গত ২১ এপ্রিল সকালে ভাই সাগর ইজিবাইক নিয়ে বের হয়। সন্ধ্যায় বাবার সাথে কথা হলে সাগর জানায় সে ভেড়ামারার সাতবাড়িয়া থেকে বাড়ির দিকে আসছে। কিন্তু সে বাড়িতে আসেনি এবং তার মোবাইলটি বন্ধ পাওয়া যায়। অনেক খোঁজাখুঁজির পর তাকে না পেয়ে ২২ এপ্রিল কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানায় সাধারণ ডায়েরী করা হয়। পাকশীর পরিচিত একজন ফোন করে জানায়, একজনের লাশ পাওয়া গেছে এসে দেখে যেতে। এসে দেখি আমার ভাইয়ের লাশ। নিহতের শশুড় তৌহিদুল ইসলাম বলেন, আমার জামাইয়ের লাশের পাশে তার মোবাইল ও স্যান্ডেল পাওয়া গেছে। কিন্তু ইজিবাইকটি পাওয়া যায়নি।
ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, সন্ধ্যার দিকে পাকশী রেলওয়ে স্টেশন সংলগ্ন কলাবাগানের কাছে ঘাস কাটতে গিয়ে একটি অর্ধগলিত মরদেহ দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা থানায় খবর দেয়। তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে যেয়ে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানার নিখোঁজ জিডি’র সূত্র ধরে ওই পরিবারকে খবর দেই। নিহতের পরিবার এসে মরদেহ শনাক্ত করলে মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা পাঠানো হয়। ইজিবাইক ছিনতাই করতেই হত্যা করা হয়েছে বলে ওসি’র ধারণা।