ঢাকা ০৬:৩০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চাটমোহরে থামছেনা ফসলি জমিতে পুকুর খনন

বড়াল প্রতিবেদক:
  • আপডেট সময় : ০৫:১৬:২১ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ২৪৮ বার পঠিত

পাবনার চাটমোহরে ফসলি জমিতে পুকুর খনন চলছেই। উপজেলার যত্রতত্র কৃষি জমির উপরিভাগের মাটি তথা টপ সয়েল কাটার হিড়িক পড়েছে। বিভিন্ন এলাকায় ফসলি জমিতে পুকুর খননের যেন উৎসব শুরু হয়েছে। ফলে কৃষি জমির উর্বর মাটি চলে যাচ্ছে অবৈধভাবে স্থাপিত ইটভাটাসহ নানা স্থানে। এতে একদিকে যেমন কৃষি জমির উর্বরতা হ্রাস পাচ্ছে,সৃষ্টি হচ্ছে জলাবদ্ধতার,অপরদিকে উৎপাদন ঘাটতির শঙ্কাও দেখা দিয়েছে।
একাধিক সূত্র জানায়,উপজেলার হান্ডিয়াল ইউনিয়নেই পুকুর খননের ঘটনা ঘটছে বেশি। সিদ্দিনগরে জনৈক আঃ মতিন এস্কেভেটর দিয়ে মাটি কেটে বিক্রি করছেন। একই ইউনিয়নের বাঘলবাড়ি চারমাথা কুপিশ^র বটতলায় নজরুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি ফসলি জমিতে পুকুর খনন করে মাটি বিক্রি করছেন বিভিন্ন ইটভাটায়। এছাড়া বেলঘরিয়ায় ফের পুকুর খনন করা হচ্ছে। রাতের আঁধারে প্রভাবশালী এক ব্যক্তি এই পুকুর খনন জোরেসোরে শুরু করেছে বলে এলাকাবাসী জানান।
এছাড়াও মথুরাপুর ইউনিয়নের চিরইল বিলে,ছাইকোলা ইউনিয়নের বোয়াইলমারী মাঠে,ডিবিগ্রাম এবং মুলগ্রাম ইউনিয়নের বিভিন্ন মাঠে ফসলি জমিতে পুকুর খনন চলছে।
ইতোমধ্যে উপজেলা প্রশাসন অভিযান চালিয়ে একাধিক ব্যক্তিকে অবৈধভাবে পুকুর খনন করায় জরিমানাও করেছে। তবুও থেমে নেই ফসলি জমিতে পুকুর খননের কাজ।
চাটমোহর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ রেদুয়ানুল হালিম ফসলি জমিতে পুকুর খননকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানিয়েছেন।

ট্যাগস :

চাটমোহরে থামছেনা ফসলি জমিতে পুকুর খনন

আপডেট সময় : ০৫:১৬:২১ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

পাবনার চাটমোহরে ফসলি জমিতে পুকুর খনন চলছেই। উপজেলার যত্রতত্র কৃষি জমির উপরিভাগের মাটি তথা টপ সয়েল কাটার হিড়িক পড়েছে। বিভিন্ন এলাকায় ফসলি জমিতে পুকুর খননের যেন উৎসব শুরু হয়েছে। ফলে কৃষি জমির উর্বর মাটি চলে যাচ্ছে অবৈধভাবে স্থাপিত ইটভাটাসহ নানা স্থানে। এতে একদিকে যেমন কৃষি জমির উর্বরতা হ্রাস পাচ্ছে,সৃষ্টি হচ্ছে জলাবদ্ধতার,অপরদিকে উৎপাদন ঘাটতির শঙ্কাও দেখা দিয়েছে।
একাধিক সূত্র জানায়,উপজেলার হান্ডিয়াল ইউনিয়নেই পুকুর খননের ঘটনা ঘটছে বেশি। সিদ্দিনগরে জনৈক আঃ মতিন এস্কেভেটর দিয়ে মাটি কেটে বিক্রি করছেন। একই ইউনিয়নের বাঘলবাড়ি চারমাথা কুপিশ^র বটতলায় নজরুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি ফসলি জমিতে পুকুর খনন করে মাটি বিক্রি করছেন বিভিন্ন ইটভাটায়। এছাড়া বেলঘরিয়ায় ফের পুকুর খনন করা হচ্ছে। রাতের আঁধারে প্রভাবশালী এক ব্যক্তি এই পুকুর খনন জোরেসোরে শুরু করেছে বলে এলাকাবাসী জানান।
এছাড়াও মথুরাপুর ইউনিয়নের চিরইল বিলে,ছাইকোলা ইউনিয়নের বোয়াইলমারী মাঠে,ডিবিগ্রাম এবং মুলগ্রাম ইউনিয়নের বিভিন্ন মাঠে ফসলি জমিতে পুকুর খনন চলছে।
ইতোমধ্যে উপজেলা প্রশাসন অভিযান চালিয়ে একাধিক ব্যক্তিকে অবৈধভাবে পুকুর খনন করায় জরিমানাও করেছে। তবুও থেমে নেই ফসলি জমিতে পুকুর খননের কাজ।
চাটমোহর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ রেদুয়ানুল হালিম ফসলি জমিতে পুকুর খননকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানিয়েছেন।