ঢাকা ০৪:৪৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চাটমোহর পৌরসভার প্রধান সড়ক বেহাল,দূর্ভোগ চরমে

বিশেষ প্রতিনিধি:
  • আপডেট সময় : ০৪:২১:৫৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১২৬ বার পঠিত

প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা চাটমোহর। এ পৌরসভার প্রধান সড়কসহ অধিকাংশ সড়ক এখন
খানাখন্দে ভরা। ভাঙা অংশে বৃষ্টির পানি জমে থাকে প্রায়ই। এতে মাছে মধ্যেই ঘটছে দূর্ঘটনা।
সীমাহীন ভোগান্তিতে পড়েছে। পথচারী ও এলাকাবাসী। প্রধান সড়কটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে
পড়েছে। বেড়েছে চরম জনদূর্ভোগ।
সরেজমিন দেখা গেছে,পৌরসভার থানা মোড় থেকে নতুন বাজার হাইস্কুল পর্যন্ত প্রধান সড়কের
বিভিন্ন স্থানে সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্তের। যানবাহন এ গর্তে পড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। একইসাথে
বাসস্ট্যান্ড হতে নার্সারী মোড় পর্যন্ত সড়কও বেহাল। উপজেলা পরিষদের প্রধান ফটকের

সামনেই গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। সেখানে সামান্য বৃষ্টিতেই পানি জমে। পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের ছোট
শালিখা মহল্লার হারান মোড় থেকে বড়াল নদ পর্যন্ত ড্রেন নির্মাণের নামে সড়কটি কেটে ও ভেঙে
ফেলে রাখা হয়েছে। প্রায় ৩ বছরেও ড্রেন নির্মাণ শেষ হয়নি। একই মহল্লায় পৌরসভা কার্যালয়
অভিমুথি সড়কে সামান্য বৃষ্টিতেই পানি জমে যায়। কবে নাগাদ সড়ক সংস্কার ও ড্রেন নির্মাণ
শেষ হবে,তা কেউ বলতে পারছেন না। ঠিকার কাজ শেষ না করেই সড়ক ফেলে রেখেছে।
নি¤œমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করা হচ্ছে।
গত ১৭ সেপ্টেম্বর জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত
আলোচনা সভায় পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন সাখো ক্ষোভ প্রকাশ করে
বলেন,ঠিকাদাররা কোন নিয়ম মানছেন না। সরকারি অর্থ জমা দেননা। ড্রেন নির্মাণ দীর্ঘদিনেও
শেষ করছেনা,তেমনি সড়কের কাজ ফেলে রেখেছে।
পৌর মেয়র বলেন,করোনার কারণে অর্থিক সমস্যা ছিল। ফলে পিছিয়ে গেছে উন্নয়ন কাজ।
প্রধান সড়ক থানা মোড় থেকে নতুন বাজার জার্দিস মোড় পর্যন্ত সংস্কার করতে ১০ কোটি টাকা
দরকার। তবে বেহাল সড়কগুলো সংস্কারে ইতোমধ্যেই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। বরাদ্দ সাপেক্ষে
দ্রুত কাজ করা হবে।

ট্যাগস :

চাটমোহর পৌরসভার প্রধান সড়ক বেহাল,দূর্ভোগ চরমে

আপডেট সময় : ০৪:২১:৫৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২৩

প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা চাটমোহর। এ পৌরসভার প্রধান সড়কসহ অধিকাংশ সড়ক এখন
খানাখন্দে ভরা। ভাঙা অংশে বৃষ্টির পানি জমে থাকে প্রায়ই। এতে মাছে মধ্যেই ঘটছে দূর্ঘটনা।
সীমাহীন ভোগান্তিতে পড়েছে। পথচারী ও এলাকাবাসী। প্রধান সড়কটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে
পড়েছে। বেড়েছে চরম জনদূর্ভোগ।
সরেজমিন দেখা গেছে,পৌরসভার থানা মোড় থেকে নতুন বাজার হাইস্কুল পর্যন্ত প্রধান সড়কের
বিভিন্ন স্থানে সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্তের। যানবাহন এ গর্তে পড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। একইসাথে
বাসস্ট্যান্ড হতে নার্সারী মোড় পর্যন্ত সড়কও বেহাল। উপজেলা পরিষদের প্রধান ফটকের

সামনেই গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। সেখানে সামান্য বৃষ্টিতেই পানি জমে। পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের ছোট
শালিখা মহল্লার হারান মোড় থেকে বড়াল নদ পর্যন্ত ড্রেন নির্মাণের নামে সড়কটি কেটে ও ভেঙে
ফেলে রাখা হয়েছে। প্রায় ৩ বছরেও ড্রেন নির্মাণ শেষ হয়নি। একই মহল্লায় পৌরসভা কার্যালয়
অভিমুথি সড়কে সামান্য বৃষ্টিতেই পানি জমে যায়। কবে নাগাদ সড়ক সংস্কার ও ড্রেন নির্মাণ
শেষ হবে,তা কেউ বলতে পারছেন না। ঠিকার কাজ শেষ না করেই সড়ক ফেলে রেখেছে।
নি¤œমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করা হচ্ছে।
গত ১৭ সেপ্টেম্বর জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত
আলোচনা সভায় পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন সাখো ক্ষোভ প্রকাশ করে
বলেন,ঠিকাদাররা কোন নিয়ম মানছেন না। সরকারি অর্থ জমা দেননা। ড্রেন নির্মাণ দীর্ঘদিনেও
শেষ করছেনা,তেমনি সড়কের কাজ ফেলে রেখেছে।
পৌর মেয়র বলেন,করোনার কারণে অর্থিক সমস্যা ছিল। ফলে পিছিয়ে গেছে উন্নয়ন কাজ।
প্রধান সড়ক থানা মোড় থেকে নতুন বাজার জার্দিস মোড় পর্যন্ত সংস্কার করতে ১০ কোটি টাকা
দরকার। তবে বেহাল সড়কগুলো সংস্কারে ইতোমধ্যেই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। বরাদ্দ সাপেক্ষে
দ্রুত কাজ করা হবে।