ঢাকা ০৬:৫৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তীব্র তাপপ্রবাহে বেঁকে যাচ্ছে রেললাইন,দূর্ঘটনার আশঙ্কা

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি:
  • আপডেট সময় : ০৫:৩৮:২১ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৭ এপ্রিল ২০২৪ ৩০ বার পঠিত

পাবনার ঈশ্বরদী ও আশেপাশের এলাকার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া চলমান তীব্র ও অতি তীব্র তাপপ্রবাহে বেঁকে যাচ্ছে রেললাইন। ট্রেনের গতি কমানোর পাশাপাশি সতর্ক না থাকলে যেকোন মূহুর্তে ট্রেন দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। এরইমধ্যে গত ২৫ এপ্রিল রেলের পাকশী বিভাগের আব্দুলপুর স্টেশনের এবং শুক্রবার (২৬ এপ্রিল) ঈশ্বরদী বাইপাস ষ্টেশনের কাছে রেললাইন বেঁকে যায়। শুক্রবার রাজশাহীগামী আন্ত:নগর কপোতাক্ষ ট্রেনটিকে প্রায় এক ঘণ্টা আটকে রাখার পর অন্য লাইন দিয়ে ঘুরিয়ে থ্রো পাস করা হয়। রেল কর্মচারীরা প্রায় দুই ঘণ্টা রেললাইনের ওপর পানি ঢেলে তাপ কমিয়ে রেলপাত স্বাভাবিক করার পর ট্রেন চলাচল শুরু হয়।
ঈশ্বরদী বাইপাস ষ্টেশনে কর্মরত স্থানীয় শ্রমিক শুভ হোসেন জানান, কপোতাক্ষ ট্রেন ঈশ্বরদী ষ্টেশন থেকে ছাড়ার পর ঈশ্বরদী বাইপাস ষ্টেশনের কাছে আসার আগেই দূর থেকে রেললাইন বাঁকা মনে হওয়ায় ষ্টেশন মাষ্টার তাওলাদ হোসেন বিষয়টি পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে কর্মকর্তাদের জানান। পরে বিভাগীয় রেলের পরিবহন কর্মকর্তা ও সহকারী প্রকৌশলীসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা দ্রুত ঘটনাস্থলে এসে ট্রেনটিকে অন্য রেললাইন দিয়ে থ্রো পাস করার ব্যবস্থা করেন।
বাইপাস স্টেশনের মাষ্টার তাওলাদ হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, তীব্র রোদে রেললাইন প্রায় ২৫ ফুট বেঁকে গেছে। পরে রেলওয়ের লোকজন লাইনের ওপর পানি ঢেলে তাপমাত্রা কমিয়ে আনার পর রেলপথ স্বাভাবিক হয়।
পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ের বাণিজ্যিক কর্মকর্তা নাসির উদ্দীন বলেন, তীব্র ও অতি তীব্র তাপমাত্রায় গত বৃহস্পতিবার আব্দুলপুর স্টেশনে এবং শুক্রবার ঈশ্বরদী বাইপাস স্টেশনের কাছে রেললাইন বেঁকে যায়। এজন্য সাময়িক অসুবিধা হয়েছে। পরে প্রকৌশলীদের সহায়তায় লাইনে পানি ঢেলে বিষয়টির সমাধান করা হয়েছে।
পাকশী বিভাগের প্রকৌশলী-২ বীরবল মন্ডল বলেন, চলমান তীব্র ও অতি তীব্র তাপপ্রবাহে কিছু কিছু স্থানে রেললাইন বেঁকে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পরিবেশগত তাপমাত্রার চেয়ে রেললাইনের লোহার তাপমাত্রা ১৫-২০ ডিগ্রী সেন্ট্রিগ্রেড বেড়ে যায়। রেললাইনের লোহার রেলপাত ৫০ ডিগ্রী সেন্ট্রিগ্রেড পর্যন্ত সহনীয়। কিন্তু চলমান অতি তীব্র তাপপ্রবাহে লোহার রেলপাতের তাপমাত্রা ৫৭ ডিগ্রী সেন্ট্রিগ্রেড ছড়িয়ে যাওয়ার কারণে লাইন বেঁকে যাচ্ছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে পানি ঢালার পর বাঁক স্বাভাবিক পর্য়ায়ে ফিরে আসছে। কিন্তু বেশী পরিমাণ বেঁকে গেলে বাঁকা অংশ কেটে বাদ দিয়ে নতুন করে জোড়া দেওয়া হচ্ছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে সতর্কতার সাথে এবং দিনের বেলায় প্রখর রোদে গতি কমিয়ে ট্রেন চালানোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

ট্যাগস :

তীব্র তাপপ্রবাহে বেঁকে যাচ্ছে রেললাইন,দূর্ঘটনার আশঙ্কা

আপডেট সময় : ০৫:৩৮:২১ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৭ এপ্রিল ২০২৪

পাবনার ঈশ্বরদী ও আশেপাশের এলাকার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া চলমান তীব্র ও অতি তীব্র তাপপ্রবাহে বেঁকে যাচ্ছে রেললাইন। ট্রেনের গতি কমানোর পাশাপাশি সতর্ক না থাকলে যেকোন মূহুর্তে ট্রেন দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। এরইমধ্যে গত ২৫ এপ্রিল রেলের পাকশী বিভাগের আব্দুলপুর স্টেশনের এবং শুক্রবার (২৬ এপ্রিল) ঈশ্বরদী বাইপাস ষ্টেশনের কাছে রেললাইন বেঁকে যায়। শুক্রবার রাজশাহীগামী আন্ত:নগর কপোতাক্ষ ট্রেনটিকে প্রায় এক ঘণ্টা আটকে রাখার পর অন্য লাইন দিয়ে ঘুরিয়ে থ্রো পাস করা হয়। রেল কর্মচারীরা প্রায় দুই ঘণ্টা রেললাইনের ওপর পানি ঢেলে তাপ কমিয়ে রেলপাত স্বাভাবিক করার পর ট্রেন চলাচল শুরু হয়।
ঈশ্বরদী বাইপাস ষ্টেশনে কর্মরত স্থানীয় শ্রমিক শুভ হোসেন জানান, কপোতাক্ষ ট্রেন ঈশ্বরদী ষ্টেশন থেকে ছাড়ার পর ঈশ্বরদী বাইপাস ষ্টেশনের কাছে আসার আগেই দূর থেকে রেললাইন বাঁকা মনে হওয়ায় ষ্টেশন মাষ্টার তাওলাদ হোসেন বিষয়টি পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে কর্মকর্তাদের জানান। পরে বিভাগীয় রেলের পরিবহন কর্মকর্তা ও সহকারী প্রকৌশলীসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা দ্রুত ঘটনাস্থলে এসে ট্রেনটিকে অন্য রেললাইন দিয়ে থ্রো পাস করার ব্যবস্থা করেন।
বাইপাস স্টেশনের মাষ্টার তাওলাদ হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, তীব্র রোদে রেললাইন প্রায় ২৫ ফুট বেঁকে গেছে। পরে রেলওয়ের লোকজন লাইনের ওপর পানি ঢেলে তাপমাত্রা কমিয়ে আনার পর রেলপথ স্বাভাবিক হয়।
পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ের বাণিজ্যিক কর্মকর্তা নাসির উদ্দীন বলেন, তীব্র ও অতি তীব্র তাপমাত্রায় গত বৃহস্পতিবার আব্দুলপুর স্টেশনে এবং শুক্রবার ঈশ্বরদী বাইপাস স্টেশনের কাছে রেললাইন বেঁকে যায়। এজন্য সাময়িক অসুবিধা হয়েছে। পরে প্রকৌশলীদের সহায়তায় লাইনে পানি ঢেলে বিষয়টির সমাধান করা হয়েছে।
পাকশী বিভাগের প্রকৌশলী-২ বীরবল মন্ডল বলেন, চলমান তীব্র ও অতি তীব্র তাপপ্রবাহে কিছু কিছু স্থানে রেললাইন বেঁকে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পরিবেশগত তাপমাত্রার চেয়ে রেললাইনের লোহার তাপমাত্রা ১৫-২০ ডিগ্রী সেন্ট্রিগ্রেড বেড়ে যায়। রেললাইনের লোহার রেলপাত ৫০ ডিগ্রী সেন্ট্রিগ্রেড পর্যন্ত সহনীয়। কিন্তু চলমান অতি তীব্র তাপপ্রবাহে লোহার রেলপাতের তাপমাত্রা ৫৭ ডিগ্রী সেন্ট্রিগ্রেড ছড়িয়ে যাওয়ার কারণে লাইন বেঁকে যাচ্ছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে পানি ঢালার পর বাঁক স্বাভাবিক পর্য়ায়ে ফিরে আসছে। কিন্তু বেশী পরিমাণ বেঁকে গেলে বাঁকা অংশ কেটে বাদ দিয়ে নতুন করে জোড়া দেওয়া হচ্ছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে সতর্কতার সাথে এবং দিনের বেলায় প্রখর রোদে গতি কমিয়ে ট্রেন চালানোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।