ঢাকা ১১:৩৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বড়াইগ্রামে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু

বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় : ০৯:৩৩:২৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ২২ অক্টোবর ২০২৩ ৪৭ বার পঠিত

নাটোরের বড়াইগ্রামে বাড়ির পাশের পুকুরের পানিতে ডুবে আনাফ হোসেন (৩) ও হুমায়রা খাতুন (৩) নামে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল রবিবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে উপজেলার জোনাইল ইউনিয়নের চৌমুহন গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। নিহত আনাফ হোসেন ওই গ্রামের সোহেল হোসেনের ছেলে এবং হুমায়রা পাবনার ফরিদপুরের থানাপাড়া এলাকার একরামুল ইসলাম নয়নের মেয়ে। হুমায়রা তার মায়ের সাথে নানার বাড়ীতে বেড়াতে এসেছিল। নিহতরা সম্পর্কে মামাতো ফুফাতো ভাই বোন।
বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু সিদ্দিক জানান, শিশু আনাফ তার ফুফাতো বোন হুমায়রাকে সাথে নিয়ে বাড়ির পাশে সরকারি পুকুরপাড়ে খেলা করছিল। খেলা করার কোন একসময় সকলের অগোচরে অসাবধানতাবশত: তারা পুকুরের পানিতে পড়ে যায়। এদিকে অনেকক্ষন ধরে তাদের কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে শিশু হুমায়রার মা পিংকি বেগম বাইরে এসে মেয়ের খোঁজ করেন। এ সময় তার মেয়েকে খুঁজে না পেলে স্বজনসহ প্রতিবেশীরা খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে বাড়ির পাশের পুকুরের পানিতে তাদের দুজনের অচেতন দেহ ভাসমান অবস্থায় দেখতে পান। পরে দ্রুত উদ্ধার করে বড়াইগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

ট্যাগস :

বড়াইগ্রামে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু

আপডেট সময় : ০৯:৩৩:২৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ২২ অক্টোবর ২০২৩

নাটোরের বড়াইগ্রামে বাড়ির পাশের পুকুরের পানিতে ডুবে আনাফ হোসেন (৩) ও হুমায়রা খাতুন (৩) নামে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল রবিবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে উপজেলার জোনাইল ইউনিয়নের চৌমুহন গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। নিহত আনাফ হোসেন ওই গ্রামের সোহেল হোসেনের ছেলে এবং হুমায়রা পাবনার ফরিদপুরের থানাপাড়া এলাকার একরামুল ইসলাম নয়নের মেয়ে। হুমায়রা তার মায়ের সাথে নানার বাড়ীতে বেড়াতে এসেছিল। নিহতরা সম্পর্কে মামাতো ফুফাতো ভাই বোন।
বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু সিদ্দিক জানান, শিশু আনাফ তার ফুফাতো বোন হুমায়রাকে সাথে নিয়ে বাড়ির পাশে সরকারি পুকুরপাড়ে খেলা করছিল। খেলা করার কোন একসময় সকলের অগোচরে অসাবধানতাবশত: তারা পুকুরের পানিতে পড়ে যায়। এদিকে অনেকক্ষন ধরে তাদের কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে শিশু হুমায়রার মা পিংকি বেগম বাইরে এসে মেয়ের খোঁজ করেন। এ সময় তার মেয়েকে খুঁজে না পেলে স্বজনসহ প্রতিবেশীরা খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে বাড়ির পাশের পুকুরের পানিতে তাদের দুজনের অচেতন দেহ ভাসমান অবস্থায় দেখতে পান। পরে দ্রুত উদ্ধার করে বড়াইগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।