ঢাকা ০৮:২২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজ :
Logo চাটমোহরে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত Logo চাটমোহরে বিদেশ প্রত্যাগত অভিবাসীদের পুনঃএকত্রীকরনে রেইজ প্রকল্পের ভূমিকা শীর্ষক ওরিয়েন্টেশন Logo চাটমেহরে আইন শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত Logo নারী মাদক পাচারকারী আটক ও ৩৩০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ Logo উত্তাল বঙ্গোপসাগর, বন্দরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত Logo জ্যৈষ্ঠের গরমে তাল শাঁসের ব্যাপক চাহিদা Logo চাটমোহরে শিল্পী সমাজীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত Logo ভারতে অস্ত্র চোরাচালান বন্ধ করেছে আ. লীগ সরকার : প্রধানমন্ত্রী Logo পাবনার ভাঁড়ারা ইউপি চেয়ারম্যান সুলতান গ্রেপ্তার Logo গুরুদাসপুরে জনস্বাস্থ্য উন্নয়নে তামাকের মূল্য ও কর বৃদ্ধির দাবীতে অবস্থান কর্মসূচী

স্বতন্ত্র ও অন্যদলের প্রার্থীদের নির্বাচনে কোন প্রকার বাধা দেওয়া যাবেনা :প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বার্তা সংস্থা পিপ (পাবনা):
  • আপডেট সময় : ০৩:৫৯:৩৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২২ ডিসেম্বর ২০২৩ ৮০ বার পঠিত

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন,স্বতন্ত্র প্রার্থী,অন্যদলের প্রার্থীদের নির্বাচনে কোন প্রকার বাধা দেওয়া যাবেনা। কেউ কারো অধিকারে হস্তক্ষেপ করবেন না। এখানে মারামারি সংঘাত কোনো কিছু আমি দেখতে চাই না। আমার দলের কেউ করলে তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেব। সরকারের উন্নয়নমূলক চিত্র তুলে ধরে আবারও নৌকার মার্কায় ভোট চান। দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি আরও বলেন,‘এবারের নির্বাচনকে ঘিরে আপনাদের সবাইকে সচেতন থাকতে হবে। জনগণ ভোট দিবে। ভোটের মালিক জনগণ। এটা তাদের সাংবিধানিক অধিকার। আমরা এটাকে উন্মুক্ত (স্বাধীন) করেছি। প্রত্যেক জনগণের কাছে যাবেন জনগণ যাকে ভোট দিবে সেই নির্বাচিত হবেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘আমরা চাই- জনগণ তাদের ভোটের অধিকার নির্বিঘেœ প্রয়োগ করবে। তার যাকে খুশি পছন্দ করবে, ভোট দিবে এবং সে বিজয়ী হয়ে আসবে। গণতন্ত্রকে আরও সুদীর্ঘ করতে হবে। এর ব্যত্যয় ঘটলে ভবিষ্যতে বাংলাদেশ শেষ হয়ে যাবে। যতটুকু উন্নয়ন করেছি সেটুকু থাকবে না।’
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বহৃস্পতিবার বিকেলে পাবনার আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসহযোগী সংগঠনের সাথে ভার্চুয়ালি নির্বাচনী জনসভায় যোগদান করেন। এ সময় পাবনা ৫টি নির্বাচনী আসনেই অংশগ্রহনমুলক নির্বাচন করার প্রত্যয় ব্যক্ত করে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আরো প্রধানমন্ত্রী বানানোর দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপি। এ সময় প্রিন্স পাবনাবাসীর জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে আরিচা নগরবাড়ী দৌলতদিয়া ওয়াইটাইপ ব্রীজ চান। দুপুর থেকেই পাবনা রফিকুল ইসলাম বকুল স্বাধীনতা চত্ত্বর কানায় কানায় পরিপুর্ণ হয়ে উঠে।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপি পাবনাবাসীর পক্ষ থেকে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অংশগ্রহনমুলক হবে বলে বক্তব্য রাখেন। এ সময় এমপি প্রিন্স আরো বলেন,পাবনাবাসীকে শেখ হাসিনার সরকার অনেক দিয়েছে এরপরও পাবনা মানসিক হাসপাতালকে বিশ^মানের,কাজিরহাট টু আরিচা দ্বিতীয় পদ্মাসেতু, ঈশ^রদী বিমানবন্ধর চালুর দাবি করেন।
শেখ হাসিনা কার বক্তব্যে বলেন,অবৈধভাবে সংবিধান লঙ্ঘনকারী, সেনা রুলস লঙ্ঘনকারী, ক্ষমতা দখলকারী এক জেনারেলের পকেট থেকে যে দল তৈরি হয়েছে, সেই দল বিএনপি ভোটের কি বোঝে? তারা গণতন্ত্রের মানে বোঝে? এমন প্রশ্ন রেখেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা।
বৃহস্পতিবার (২১ ডিসেম্বর) বিকেলে তেজগাঁওয়ে অবস্থিত ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় থেকে পাবনাসহ পাঁচ জেলার নির্বাচনী জনসভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন,‘বিএনপি নির্বাচনে আসবে না। নির্বাচনে আসবে কিভাবে ২০০৮ সালের নির্বাচনে ফলাফলটা কি ছিল? বিএনপির নেতৃত্বে ২০ দলীয় জোট মাত্র পেয়েছিল ৩০টা আসন। আর আওয়ামী লীগ এককভাবে পেয়েছিল ২৩৩ আসন। তারা এখন বড় বড় কথা বলে! ভোটের কথা বলে! তারা ভোটের কি বোঝে? বিএনপির জন্ম হয়েছে অবৈধভাবে সংবিধানলঙ্ঘনকারী,সেনা রুলস লঙ্ঘনকারী, ক্ষমতা দখলকারী এক জেনারেলের পকেট থেকে। জিয়াউর রহমান অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করেছিল। এক জেনারেলে পকেট থেকে। ভোট চুরি করার কাজ করেছিল। ক্ষমতায় বসে থেকেই একদিকে সেনা প্রধান,রাষ্ট্রপ্রধান আবার ইলেকশনও করেছে। তাদের সব কিছুই অবৈধ।’
বিএনপি মানুষকে মানুষ মনে করলে পুড়িয়ে মারত না মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তারা মানুষকে মানুষ মনে করতে পারে না। নইলে আপনারা দেখছেন রেলে আগুন দিয়ে কিভাবে মানুষ পুড়িয়ে মারতেছে। একটা মা তার সন্তাানকে বাঁচাতে বুকে ধরে রাখছে। বাসের ভিতরে হেলপার ঘুমিয়ে আছে আগুন দিচ্ছে, ট্রাকে আগুন দিচ্ছে। একটি ছেলেকে ট্রাকে বসিয়ে রেখে বাবা পানি আনতে গিয়ে দেখে ছেলে আগুনে পুড়ে অঙ্গার হয়েছে। একইভাবে ২০১৩ সালে ১৪ সালে ১৮ সালে একইভাবে আগুন দিয়ে মানুষ হত্যা করেছিল। ৫ জানুয়ারির নির্বাচন ঠেকানোর নামে ৫৮২টি স্কুল, ৭০টি সরকারি অফিস, ৬ টা ভূমি অফিস, ৩২৫২ গাড়ী, ২৯ টি রেল, ৯ টি লঞ্চ আগুন দিয়ে পুড়িয়েছিল। ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়েছিল।’
তারেক রহমানের প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘আর একটি কুলাঙ্গার আছে ২০০১ সালে তার হাওয়া ভবন ছিল। চাঁদা না দিলে ব্যবসায়ীরা ব্যবসা করতে পারত না। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিত। সে অবৈধ যত কাজ আছে সবই করেছে। মানি লন্ডারিং থেকে শুরু করে অস্ত্র চুরাকারবারী, ১০ ট্রাক অস্ত্র আনয়ন, দুর্নীতি সবই সে করেছে। বিদেশ থেকে এসে তার বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিয়ে গেছে। এজন্য তার সাজাও হয়েছে। এখন আবার বিদেশে বসে ভোটের কথা বলে গণতন্ত্রের কথা বলে। সে তো রাজনীতি করবে না। আবার বিদেশে বসে থেকে হুকুম দিয়ে উস্কানি দিয়ে নেতাদের দিয়ে মানুষ হত্যা করাচ্ছে। নির্বাচন বানচাল কবার পাঁয়তারা করতেছে।’
এ সময় পাবনাবাসী পক্ষ থেকে বক্তব্য দেন পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রেজাউল রহিম লাল এবং পাবনা-৫ আসনের নৌকার প্রার্থী ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপি। তারা উভয় পাবনার উন্নয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান এবং আবারও বেশ কয়েকটি উন্নয়নমুলক কর্মকান্তে প্রস্তাব করেন। পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া-কাজিরহাট ওয়াই সিস্টেমে সেতু, ঢাকা-পাবনা ট্রেন, পাবনা মানসিক হাসপাতাল সংস্কার ও ঈশ্বরদী বিমানবন্দর কয়েকটি প্রকল্প চেয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী তাদের আশ্বাস দেন।
ভার্চুয়ালী জনসভায় পাবনা প্রান্তে বক্তব্য রাখেন পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রেজাউল রহিম লাল ও সাধারণ সম্পাদক ও পাবনা ৫ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী গোলাম ফারুক খন্দকার প্রিন্স এমপি।
পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রেজাউল রহিম লাল বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি পাবনাকে ভালবেসে মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও ডেপুটি স্পিকার দিয়েছেন। আমরা কৃতজ্ঞ।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন ডেপুটি স্পীকার ও পাবনা ১ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শামসুল হক টুকু এমপি, পাবনা ২ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আহমেদ ফিরোজ কবীর এমপি, পাবনা ৩ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মকবুল হোসেন এমপি, পাবনা ৪ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো, গালিবুর রহমান শরীফ, সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য নাদিরা ইয়াসমিন জলি, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আ স ম আব্দুর রহিম পাকন, পাবনা পৌর মেয়র শরীফ উদ্দিন প্রধান, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোশারোফ হোসেন প্রমূখ।

ট্যাগস :

স্বতন্ত্র ও অন্যদলের প্রার্থীদের নির্বাচনে কোন প্রকার বাধা দেওয়া যাবেনা :প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

আপডেট সময় : ০৩:৫৯:৩৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২২ ডিসেম্বর ২০২৩

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন,স্বতন্ত্র প্রার্থী,অন্যদলের প্রার্থীদের নির্বাচনে কোন প্রকার বাধা দেওয়া যাবেনা। কেউ কারো অধিকারে হস্তক্ষেপ করবেন না। এখানে মারামারি সংঘাত কোনো কিছু আমি দেখতে চাই না। আমার দলের কেউ করলে তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেব। সরকারের উন্নয়নমূলক চিত্র তুলে ধরে আবারও নৌকার মার্কায় ভোট চান। দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি আরও বলেন,‘এবারের নির্বাচনকে ঘিরে আপনাদের সবাইকে সচেতন থাকতে হবে। জনগণ ভোট দিবে। ভোটের মালিক জনগণ। এটা তাদের সাংবিধানিক অধিকার। আমরা এটাকে উন্মুক্ত (স্বাধীন) করেছি। প্রত্যেক জনগণের কাছে যাবেন জনগণ যাকে ভোট দিবে সেই নির্বাচিত হবেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘আমরা চাই- জনগণ তাদের ভোটের অধিকার নির্বিঘেœ প্রয়োগ করবে। তার যাকে খুশি পছন্দ করবে, ভোট দিবে এবং সে বিজয়ী হয়ে আসবে। গণতন্ত্রকে আরও সুদীর্ঘ করতে হবে। এর ব্যত্যয় ঘটলে ভবিষ্যতে বাংলাদেশ শেষ হয়ে যাবে। যতটুকু উন্নয়ন করেছি সেটুকু থাকবে না।’
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বহৃস্পতিবার বিকেলে পাবনার আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসহযোগী সংগঠনের সাথে ভার্চুয়ালি নির্বাচনী জনসভায় যোগদান করেন। এ সময় পাবনা ৫টি নির্বাচনী আসনেই অংশগ্রহনমুলক নির্বাচন করার প্রত্যয় ব্যক্ত করে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আরো প্রধানমন্ত্রী বানানোর দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপি। এ সময় প্রিন্স পাবনাবাসীর জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে আরিচা নগরবাড়ী দৌলতদিয়া ওয়াইটাইপ ব্রীজ চান। দুপুর থেকেই পাবনা রফিকুল ইসলাম বকুল স্বাধীনতা চত্ত্বর কানায় কানায় পরিপুর্ণ হয়ে উঠে।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপি পাবনাবাসীর পক্ষ থেকে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অংশগ্রহনমুলক হবে বলে বক্তব্য রাখেন। এ সময় এমপি প্রিন্স আরো বলেন,পাবনাবাসীকে শেখ হাসিনার সরকার অনেক দিয়েছে এরপরও পাবনা মানসিক হাসপাতালকে বিশ^মানের,কাজিরহাট টু আরিচা দ্বিতীয় পদ্মাসেতু, ঈশ^রদী বিমানবন্ধর চালুর দাবি করেন।
শেখ হাসিনা কার বক্তব্যে বলেন,অবৈধভাবে সংবিধান লঙ্ঘনকারী, সেনা রুলস লঙ্ঘনকারী, ক্ষমতা দখলকারী এক জেনারেলের পকেট থেকে যে দল তৈরি হয়েছে, সেই দল বিএনপি ভোটের কি বোঝে? তারা গণতন্ত্রের মানে বোঝে? এমন প্রশ্ন রেখেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা।
বৃহস্পতিবার (২১ ডিসেম্বর) বিকেলে তেজগাঁওয়ে অবস্থিত ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় থেকে পাবনাসহ পাঁচ জেলার নির্বাচনী জনসভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন,‘বিএনপি নির্বাচনে আসবে না। নির্বাচনে আসবে কিভাবে ২০০৮ সালের নির্বাচনে ফলাফলটা কি ছিল? বিএনপির নেতৃত্বে ২০ দলীয় জোট মাত্র পেয়েছিল ৩০টা আসন। আর আওয়ামী লীগ এককভাবে পেয়েছিল ২৩৩ আসন। তারা এখন বড় বড় কথা বলে! ভোটের কথা বলে! তারা ভোটের কি বোঝে? বিএনপির জন্ম হয়েছে অবৈধভাবে সংবিধানলঙ্ঘনকারী,সেনা রুলস লঙ্ঘনকারী, ক্ষমতা দখলকারী এক জেনারেলের পকেট থেকে। জিয়াউর রহমান অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করেছিল। এক জেনারেলে পকেট থেকে। ভোট চুরি করার কাজ করেছিল। ক্ষমতায় বসে থেকেই একদিকে সেনা প্রধান,রাষ্ট্রপ্রধান আবার ইলেকশনও করেছে। তাদের সব কিছুই অবৈধ।’
বিএনপি মানুষকে মানুষ মনে করলে পুড়িয়ে মারত না মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তারা মানুষকে মানুষ মনে করতে পারে না। নইলে আপনারা দেখছেন রেলে আগুন দিয়ে কিভাবে মানুষ পুড়িয়ে মারতেছে। একটা মা তার সন্তাানকে বাঁচাতে বুকে ধরে রাখছে। বাসের ভিতরে হেলপার ঘুমিয়ে আছে আগুন দিচ্ছে, ট্রাকে আগুন দিচ্ছে। একটি ছেলেকে ট্রাকে বসিয়ে রেখে বাবা পানি আনতে গিয়ে দেখে ছেলে আগুনে পুড়ে অঙ্গার হয়েছে। একইভাবে ২০১৩ সালে ১৪ সালে ১৮ সালে একইভাবে আগুন দিয়ে মানুষ হত্যা করেছিল। ৫ জানুয়ারির নির্বাচন ঠেকানোর নামে ৫৮২টি স্কুল, ৭০টি সরকারি অফিস, ৬ টা ভূমি অফিস, ৩২৫২ গাড়ী, ২৯ টি রেল, ৯ টি লঞ্চ আগুন দিয়ে পুড়িয়েছিল। ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়েছিল।’
তারেক রহমানের প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘আর একটি কুলাঙ্গার আছে ২০০১ সালে তার হাওয়া ভবন ছিল। চাঁদা না দিলে ব্যবসায়ীরা ব্যবসা করতে পারত না। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিত। সে অবৈধ যত কাজ আছে সবই করেছে। মানি লন্ডারিং থেকে শুরু করে অস্ত্র চুরাকারবারী, ১০ ট্রাক অস্ত্র আনয়ন, দুর্নীতি সবই সে করেছে। বিদেশ থেকে এসে তার বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিয়ে গেছে। এজন্য তার সাজাও হয়েছে। এখন আবার বিদেশে বসে ভোটের কথা বলে গণতন্ত্রের কথা বলে। সে তো রাজনীতি করবে না। আবার বিদেশে বসে থেকে হুকুম দিয়ে উস্কানি দিয়ে নেতাদের দিয়ে মানুষ হত্যা করাচ্ছে। নির্বাচন বানচাল কবার পাঁয়তারা করতেছে।’
এ সময় পাবনাবাসী পক্ষ থেকে বক্তব্য দেন পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রেজাউল রহিম লাল এবং পাবনা-৫ আসনের নৌকার প্রার্থী ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপি। তারা উভয় পাবনার উন্নয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান এবং আবারও বেশ কয়েকটি উন্নয়নমুলক কর্মকান্তে প্রস্তাব করেন। পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া-কাজিরহাট ওয়াই সিস্টেমে সেতু, ঢাকা-পাবনা ট্রেন, পাবনা মানসিক হাসপাতাল সংস্কার ও ঈশ্বরদী বিমানবন্দর কয়েকটি প্রকল্প চেয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী তাদের আশ্বাস দেন।
ভার্চুয়ালী জনসভায় পাবনা প্রান্তে বক্তব্য রাখেন পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রেজাউল রহিম লাল ও সাধারণ সম্পাদক ও পাবনা ৫ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী গোলাম ফারুক খন্দকার প্রিন্স এমপি।
পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রেজাউল রহিম লাল বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি পাবনাকে ভালবেসে মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও ডেপুটি স্পিকার দিয়েছেন। আমরা কৃতজ্ঞ।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন ডেপুটি স্পীকার ও পাবনা ১ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শামসুল হক টুকু এমপি, পাবনা ২ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আহমেদ ফিরোজ কবীর এমপি, পাবনা ৩ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মকবুল হোসেন এমপি, পাবনা ৪ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো, গালিবুর রহমান শরীফ, সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য নাদিরা ইয়াসমিন জলি, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আ স ম আব্দুর রহিম পাকন, পাবনা পৌর মেয়র শরীফ উদ্দিন প্রধান, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোশারোফ হোসেন প্রমূখ।